Scroll to top

বৃহৎ করদাতারা মেলায় ২৯৩ কোটি টাকা কর দিলেন

বৃহৎ করদাতারা মেলায় ২৯৩ কোটি টাকা কর দিলেন



২১টি বৃহৎ করদাতা প্রতিষ্ঠান ২৯৩ কোটি টাকা কর দিয়েছে। আজ বুধবার আয়কর মেলার শেষদিনে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) চেয়ারম্যান মো. মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়ার হাতে প্রতিষ্ঠানগুলোর ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা করের পে-অর্ডার তুলে দেন।

যেসব প্রতিষ্ঠান কর দিয়েছে তাদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো, সিটি ব্যাংক (২০ কোটি টাকা), প্রাইম ব্যাংক (১০ কোটি টাকা), যমুনা ব্যাংক (১০ কোটি টাকা), ঢাকা ব্যাংক (১৫ কোটি টাকা), স্ট্যান্ডার্ড ব্যাংক (১০ কোটি টাকা), পূবালী ব্যাংক (১০ কোটি টাকা), উত্তরা ব্যাংক (১০ কোটি টাকা), ব্র্যাক ব্যাংক (১০ কোটি টাকা), ব্যাংক এশিয়া (১০ কোটি টাকা), স্কয়ার ফার্মা (২০ কোটি টাকা), সাধারণ বীমা করপোরেশন (১০ কোটি টাকা), মিউচুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংক (১০ কোটি টাকা) ও বেক্সিমকো লিমিটেড (২ কোটি টাকা)।

পে-অর্ডার গ্রহণের পর এনবিআর চেয়ারম্যান বলেন, বৃহৎ করদাতারা সাধারণত আরও অনেক বেশি কর দেন। তবে মেলা উপলক্ষে আমাদের আহ্বানে তাদের করের একটি অংশ আজ জমা দিলেন তারা।

রাজধানীর বেইলি রোডের অফিসার্স ক্লাবে অনুষ্ঠিত সাত দিনব্যাপী আয়কর মেলার আজ শেষ দিন। বেলা দেড়টার দিকে মেলা প্রাঙ্গণে দেখা যায়, বিপুলসংখ্যক করদাতা রিটার্ন দেওয়ার জন্য মেলায় এসেছেন। প্রত্যেকটি কর অঞ্চলের বুথেই করদাতারা লম্বা লাইনে দাঁড়িয়ে রিটার্ন দিচ্ছেন।

এনবিআর চেয়ারম্যান বলেন, মেলায় আজ রাত আটটা পর্যন্ত করদাতারা রিটার্ন জমা জমা দিতে পারবেন। মেলার পর ৩০ নভেম্বর পর্যন্ত নির্দিষ্ট কর অঞ্চলে রিটার্ন জমা দেওয়া যাবে। তারপর জমা দিতে হলে জরিমানা দিতে হবে।

এনবিআর চেয়ারম্যান আরও বলেন, করদাতারা মেলায় হয়রানি ছাড়াই রিটার্ন জমা দিয়েছেন। কর অঞ্চলেও একইভাবে হয়রানি ছাড়াই রিটার্ন জমা দেওয়া যাবে। কোনো কর কর্মকর্তা যদি করদাতাকে হয়রানি করেন, তাহলে তাঁর বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

গতকাল পর্যন্ত দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে কর মেলা থেকে ২ হাজার ১৬ কোটি টাকার কর আদায় হয়েছে। সেদিন পর্যন্ত ৫ লাখ ৩৯ হাজার ৯১০ জন করদাতা রিটার্ন জমা দিয়েছেন। এ সময়ে ১৫ লাখ ১২ হাজার ৫৯২ জন কর মেলায় বিভিন্ন সেবা নিয়েছেন। তাঁদের মধ্যে ই-টিআইএন নিয়েছেন ২৬ হাজার ৮৩১ জন। তাঁরা নতুন করদাতা। গতকাল মঙ্গলবার এনবিআরের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়।

News Source: প্রথম আলো